যোগাযোগ কৌশল প্রশিক্ষণ

সাধারণ জিজ্ঞাসা

আপনি কি এখানে প্রথমবার এসেছেন?

“যোগাযোগ কৌশল প্রশিক্ষণ” কোর্সে অংশ নিতে আপনার একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করতে হবে। নীচের পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করে এটি করুন।

 

অ্যাকাউন্ট কেন দরকার?

কোর্সে অগ্রগতির রেকর্ড রাখা, প্রশিক্ষণার্থীকে প্রশংসাপত্র প্রদান করা, কোর্স সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া, মন্তব্য, এবং পরামর্শ নেওয়ার জন্য। আমরা আপনার ব্যক্তিগত তথ্য কারও কাছে দেব না।

 

কীভাবে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করা যাবে?

banglatutorial-media.org এ নিবন্ধন ফর্মটি সম্পূর্ণ করুন। আপনি ফর্মটি জমা দেওয়ার সময়, আপনি আমাদের যে ইমেল ঠিকানাটি দিয়েছেন সেটিতে একটি ইমেল প্রেরণ করা হবে আপনার নিবন্ধকরণটি নিশ্চিত করতে, ইমেলের লিঙ্কটিতে ক্লিক করুন। আপনার অ্যাকাউন্টটি নিশ্চিত হয়ে যাবে এবং আপনি লগ ইন করতে এবং কোর্স করা শুরু করতে সক্ষম হবেন।

 

“যোগাযোগ কৌশল প্রশিক্ষণ” অনলাইন কোর্সের প্রয়োজনীয়তা কী?

বিশ্বব্যাপী গণমাধ্যম পরিস্থিতি দ্রুত পরিবর্তন হচ্ছে এবং বাংলাদেশও এ প্রভাব থেকে মুক্ত নয়। ফলে গণমাধ্যম কর্মীদের পেশাগত ক্ষেত্রে ক্রমাগত নতুন নতুন ইস্যু ও কৌশল চর্চার সঙ্গে অভ্যস্থ হতে হচ্ছে। গণমাধ্যম কর্মীদের গণমাধ্যম সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক আইনের ব্যবহার, সাংবাদিকতায় নীতি-নৈতিকতার প্রয়োগ, নিউ মিডিয়া বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারের বহুমূখী ঝুঁকিসহ অন্যান্য বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীদের সচেতন থাকা আবশ্যক হয়ে উঠছে। বিশেষ করে অনলাইন বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটি ক্রমাগতভাবে জনপ্রিয় ও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। কিন্তু একই সঙ্গে এ মাধ্যম ব্যবহারের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টরা নানা ধরনের নেতিবাচক ও স্পর্শকাতর ঝুঁকির মধ্যে থাকেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল- সাইবার বুলিং বা আক্রমন, ফেক বা ভুয়া তথ্যের ব্যবহার, বিদ্বেষমূলক তথ্য প্রচার ইত্যাদি। এসব স্পর্শকাতর বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে এ সংক্রান্ত পাঠ্যক্রমে শিক্ষার্থীদের জন্য তেমন কোন পাঠ্য নেই এবং একটি গতানুগতিক শিখন প্রক্রিয়ায় অভ্যস্থ হওয়ার ফলে সময়োপযোগি এসব ইস্যুর ব্যাপারে শিক্ষার্থীরা অন্ধকারে থাকেন। ফলে প্রায়শই এসব নবীন গণমাধ্যমকর্মীরা পেশাগত ক্ষেত্রে সচেতনতার অভাবে শারীরিক ও নানা ধরণের আইনি ঝুঁকির সম্মূখীন হচ্ছেন। তাই এ পরিস্থিতি থেকে উত্তোরণের জন্য নতুন প্রজন্মের সাংবাদিক ও গণমাধ্যম কর্মীদের দক্ষ ও সচেতন করে তোলা দরকার।

 

কোর্সের বৈশিষ্ট্য কী ?

  • অনলাইন কোর্স

  • সর্ম্পূণ বিনামূল্যে

  • মোবাইল ফোন ব্যবহার করেও এই কোর্স করা যাবে

  • সর্বশেষ গণমাধ্যম আইন, নীতি-নৈতিকতার প্রয়োগ, ডিজিটাল নিরাপত্তা বিষয়ে প্রায়োগিক শিক্ষা

 

এই কোর্স করে কী শিখবেন?

  • বিদ্বেষমূলক বক্তব্য, ফেক বা ভুয়া তথ্য, প্রাইভেসি, ডাটা প্রটেকশন ইত্যাদি বিষয়ে গণমাধ্যম কর্মীরা সজাগ ও দায়িত্বশীল হয়ে উঠবেন

  • সর্বশেষ গণমাধ্যম আইন, নীতি-নৈতিকতার প্রয়োগ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের দক্ষতা ও ঝুঁকি মোকাবেলা বিষয়ে দক্ষ ও সচেতন হয়ে উঠবেন।

  • আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর যুগোপযোগি গণমাধ্যম চর্চায় নতুন প্রজন্মের সাংবাদিক ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কর্মীরা দক্ষ ও সচেতন হয়ে উঠবেন

  • নতুন প্রজন্মের সাংবাদিক ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কর্মীরা সময়োপোযোগি তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর গণমাধ্যম চর্চা বা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সক্ষম হবেন

 

এই কোর্স কারা করতে পারবেন?

  • যোগাযোগ ও সাংবাদিকতার শিক্ষার্থী

  • পেশাদার প্রিন্ট, ইলেক্ট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিক

  • অনলাইন অ্যাক্টিভিস্ট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারী

  • যারা সাংবাদিকতা পেশায় আসতে আগ্রহী

  • যেকোন আগ্রহী মানুষ

 

ব্যক্তিগত নিরাপত্তা বিধান ও ক্যারিয়ারে কীভাবে সহায়তা করবে এই কোর্স?

গণমাধ্যম কর্মীদের পেশাগত ক্ষেত্রে ক্রমাগত নতুন নতুন ইস্যু ও কৌশল চর্চার সঙ্গে অভ্যস্ত হতে হচ্ছে। গণমাধ্যম তথা মত প্রকাশ চর্চার ক্ষেত্রে একই সঙ্গে সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিস্থিতি, তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহারের চ্যালেঞ্জ সামলাতে হচ্ছে। এই অনলাইন কোর্স করে প্রশিক্ষণার্থীগণ নিরাপদ ডিজিটাল ব্যবহার, অনলাইনে নিজেদের অধিকার ও অপরের অধিকার সম্পর্কে সচেতন হবেন। নতুন প্রজন্মের সাংবাদিক ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কর্মীরা সময়োপোযোগি তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর গণমাধ্যম চর্চা বা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সক্ষম হবেন। প্রশিক্ষণার্থীগণ সাংবাদিকতার নীতি / নিয়ম, সত্যবাদিতা, নির্ভুলতা, বস্তুনিষ্ঠতার নীতিমালা, নিরপেক্ষতা, ন্যায্যতা, জবাবদিহিতা নীতিমালা, প্রযুক্তিগত এবং ডিজিটাল সুরক্ষা সম্পর্কে জানবেন।

এই অনলাইন কোর্সটি করে প্রশিক্ষণার্থীগণ দক্ষ হয়ে উঠবেন ফলে তারা কর্মক্ষেত্রে উন্নতি করবেন। এই কোর্স করে প্রশিক্ষণার্থীগণ জবাবদিহিতা, সুশাসন, কর্মপরিবেশ ইত্যাদি বিষয়ে সচেতন হয়ে উঠবেন যা উৎপাদনশীল ও উপযুক্ত কাজের সুবিধা নিশ্চিত করণে সহায়ক হবে।

X